1. [email protected] : Md. Abdullah Al Mamun : Md. Abdullah Al Mamun
  2. [email protected] : admin : admin
  3. [email protected] : Shamsul Akram : Shamsul Akram
  4. [email protected] : Mohammad Anas : Mohammad Anas
  5. [email protected] : Rabiul Azam : Rabiul Azam
  6. [email protected] : Imran Khan : Imran Khan
  7. [email protected] : Jannatul Ferdous : Jannatul Ferdous
  8. [email protected] : Juwel Rana : Juwel Rana
  9. [email protected] : K M Khalid Shifullah : K M Khalid Shifullah
  10. [email protected] : Md. Mahbubur Rahman : Md. Mahbubur Rahman
  11. [email protected] : Shoyaib Forhad : Shoyaib Forhad
  12. [email protected] : Mijanur Rahman : Mijanur Rahman
  13. [email protected] : Mohoshin Reza : Mohoshin Reza
  14. [email protected] : Noman Chowdhury : Noman Chowdhury
  15. [email protected] : Md. Rakibul Islam : Md. Rakibul Islam
  16. [email protected] : Rasel Mia : Rasel Mia
  17. [email protected] : Rayhan Hossain : Rayhan Hossain
  18. [email protected] : Md. Sabbir Ahamed : Md. Sabbir Ahamed
  19. [email protected] : Abdus Salam : Abdus Salam
  20. [email protected] : Shariful Islam : Shariful Islam
  21. [email protected] : BN Support : BN Support
  22. [email protected] : Suraiya Nasrin : Suraiya Nasrin
  23. [email protected] : Aftab Wafy : Aftab Wafy
নবীনদের ভাবনায় নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় - BDTone24.com
রবিবার, ১২:৫০ অপরাহ্ন, ০২ অক্টোবর ২০২২ ইং, ১৭ আশ্বিন ১৪২৯ বাংলা

নবীনদের ভাবনায় নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়

তানভীর আহম্মেদ
  • সময় বুধবার, ২৩ মার্চ, ২০২২

দীর্ঘ অপেক্ষা এবং কোভিড-১৯ এর মতো বিভীষিকাময় মুহূর্ত পার করে শেষ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্পণ করেছে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা। নানা অনিশ্চিয়তা এবং প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ভর্তি হয়েছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে। নতুনদের আগমনে আবারো মেতে উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। জাতীয় কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া তেমনি কিছু নতুন শিক্ষার্থীদের অনুভূতি জানাচ্ছে তানভীর আহম্মেদ।

মতামত জানাচ্ছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগের শিক্ষার্থী কোহিনূর আক্তার অন্তরা,

“বিশ্ববিদ্যালয়” এই শব্দটি আমার মধ্যে অদ্ভুত এক আনন্দের অনুভূতি জাগায়। হাজারো শিক্ষার্থীর স্বপ্ন ও অনন্য অনুভূতির স্থান বিশ্ববিদ্যালয়। আমার জীবনেও বিশ্ববিদ্যালয় এমনি এক স্বপ্নের নাম। করোনা মহামারীতে যখন দেশের প্রত্যেকটা খাতের সংকটময় অবস্থা বিরাজমান তখন দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা ও এই সংকট থেকে বাদ পড়েনি। ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে প্রায় ১৪ লাখ শিক্ষার্থীকে দেওয়া হয় অটোপাশ। যার মধ্যে রয়েছি আমিও । এরপরই শুরু হয় আশেপাশে বিভিন্ন মানুষের মুখে ব্যঙ্গ করে বলা ” আরে ও তো অটোপাশ”।

তখন মনে হতো এ বুঝি এক অভিশাপ হয়ে এলো। এরপরই শুরু হয় দীর্ঘ প্রায় দেড় বছরের ভর্তিযুদ্ধ। সময়টা দীর্ঘ হলেও লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়া একরকম অসহ্য হয়ে যাচ্ছিলো। কিন্তু তবু একটা স্বপ্ন ছিল যে, যাই হয়ে যাক আমি বিশ্ববিদ্যালয়েই পড়বো। আমার দেখা স্বপ্ন আজ বাস্তবে রুপান্তরিত। আজ আমি নজরুলিয়ান।

বিশ্ববিদ্যালয় মানেই ক্যাম্পাস, বন্ধুদের সাথে আড্ডা, বড় ভাইয়া – আপুদের স্নেহ ও ভালোবাসা এবং নিজেকে বিস্তৃত পরিসরে সবার সামনে তুলে ধরা। বিশ্ববিদ্যালয় আমাদের কোনো নিদিষ্ট গন্ডির মধ্যে আবদ্ধ রাখেনা। দেশের বিভিন্ন জেলার শিক্ষার্থীদের সাথে পরিচয় হওয়ার এক অসাধারণ কেন্দ্রবিন্দু। ব্যতিক্রমী মেধার বিকাশ ঘটে এখানে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি সকাল সোনালী আলোয় ভরা। প্রাণের ক্যাম্পাস এর প্রত্যেকটা দিন স্মরণ করে রাখার মতো।

জ্ঞান অর্জনের সর্বোচ্চ স্তর বিশ্ববিদ্যালয়। একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েও নবীন ও ছোট ক্যাম্পাসকেই আপন করে নিলাম। প্রেম ও দ্রোহের কবি, সাম্য, মানবতার কবি কাজী নজরুল ইসলাম। কবি নজরুলের স্মৃতিবিজড়িত, চির সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশে ঘেরা আমার প্রাণের ক্যাম্পাস। আমার জীবনের মধ্যে বড় একটা প্রাপ্তি হলো আমি একজন নজরুলিয়ান এবং পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

কোহিনূর আক্তার অন্তরা
হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগ বিভাগ

মতামত জানাচ্ছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন ও সরকার পরিচালনা বিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী মোরশেদুল আলম কায়সার,

তখন কলেজের গণ্ডি পেরিয়েছি সবে, হয়েছিলাম উচ্চ শিক্ষার প্রথম ধাপ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি যুদ্ধের একজন সৈনিক। উচ্চশিক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে প্রত্যাশা ছিল দেশের স্বনামধন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর যে কোন একটিতে ঠাই করে নেওয়া।
তবে বিশ্ববিদ্যালয়ে পছন্দের তালিকা প্রস্তুত এর ক্ষেত্রে শিক্ষার পাশাপাশি আমার বিবেচনায় ছিল সাহিত্য, সংস্কৃতি এবং অসাম্প্রদায়িক শিক্ষার পরিবেশ সম্পন্ন একটি প্রতিষ্ঠান।

অতঃপর সৌভাগ্য হলো এক শিক্ষা, সংস্কৃতি এবং আদর্শ পরিবেশ সম্পন্ন এক হাজারো প্রাণের মিলন মেলায় নিজেকে যুক্ত করার।বলছি উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পাওয়া আমার সেই প্রিয়”জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়”এর কথা। এখনো মনে পড়ে, প্রথম দিনের সভাপতিত্বে ভীরু ভীরু পদক্ষেপে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে প্রবেশের কথা। অচেনা সব, অচেনা মানুষ, অচেনা পরিবেশ। তবুও সবকিছু যেন খুবই আপন।

নজরুল ভাস্কর্য থেকে জয় বাংলা ভাস্কর্য সব যেন আমার খুব অতীতের চিরচেনা। একটা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একজন শিক্ষার্থীর প্রাপ্তির খাতায় দিনশেষে শুধুমাত্র পুঁথিগত বিদ্যা ছাড়াও যোগ হয় একটা বন্ধুসুলভ পরিবেশ পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা। যেখানে বড় ভাই এবং আপুদের আন্তরিকতা এবং স্নেহশীল আচরণ সেই আকাঙ্ক্ষার জায়গা থেকে আমাকে করেছিল পরিপূর্ণ সন্তুষ্ট।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার প্রাঙ্গণ থেকে ছাড়িয়ে হতে পারে একজন শিক্ষার্থীর সুপ্ত প্রতিভার বিকাশক । আমার সকল আকাঙ্ক্ষা এবং প্রত্যাশার প্রতিফলন ঘটেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নের সুযোগ পেয়ে।

সকল শিক্ষকগণ এবং বড় ভাই ও আপুদের স্নেহশীল মনোভাব এবং আন্তরিকতায় আমি সত্যিই অভিভূত এবং কৃতজ্ঞ। আমার প্রত্যাশা এই নবীন এবং প্রবীণ উভয়ের সম্মেলনে এই নজরুল তীর্থকে বিশ্ব দুয়ারে শ্রেষ্ঠতম বিদ্যাপীঠ হিসেবে তুলে ধরতে আমরা সক্ষম হব।

“শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড” শিক্ষা গ্রহণের জন্য প্রয়োজন সুন্দর একটি পরিবেশ, সুস্থ সাংস্কৃতিক চর্চা সহ আদর্শ একটি প্রতিষ্ঠান। যা আমি আমার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাচ্ছি। আমি এই প্রতিষ্ঠান শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পেয়ে আনন্দিত এবং গর্বিত।

মোরশেদুল আলম কায়সার
লোক প্রশাসন ও সরকার পরিচালনা বিদ্যা বিভাগ

মতামত জানাচ্ছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম এন্ড মিডিয়া স্টাডিজ  বিভাগের শিক্ষার্থী আসিফ,

জীবনের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ একটা অধ্যায় হচ্ছে ছাত্রজীবন। প্রাথমিক শিক্ষা, মাধ্যমিক শিক্ষা, উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার সবগুলো ধাপ পার করার পর একজন ছাত্র বিশ্ববিদ্যালয়ে আসে। প্রতিটি ছাত্রই ভবিষ্যত নিয়ে তার হৃদয়ে স্বপ্নের বীজ বপন করে। সেই স্বপ্ন পূরন করার জন্য আসে বিশ্ববিদ্যালয়ে।

আমিও আমার স্বপ্ন পূরণ কর‍তে এসেছি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। যখন আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্পন করি তখন যেন অলৌকিকভাবে আমার ভিতর ও বাহির পরিবর্তন হতে শুরু করে। ভিন্ন সংস্কৃতি, ভিন্ন সত্তা, ভিন্ন ধর্ম, ভিন্ন অঞ্চল এবং মানসিকাতার মানুষগুলোর সাথে যখন একসাথে হই তখন যেন একটা নতুন একটা পৃথিবী তৈরী হয় আমার।

একদিকে আমাদের আগমনে বিশ্ববিদ্যালয় মুখরিত হয় অন্যদিকে বড়দের যেন আলাদা একটা দায়িত্ব কাঁধে এসে পড়ে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশের সাথে আমাদের মানিয়ে নেওয়া শেখানোর। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ, আদবকায়দা, শিষ্টাচার শিখিয়ে যেন নতুনভাবে আমাকে সৃষ্টি করে। অল্প দিনের মধ্যেই সমস্ত সুবিধা-অসুবিধা মন খুলে প্রকাশ করা যায় এমন একটা পরিবেশ তৈরী হয়ে গেছে আমার। অগ্রজ-অনুজ মিলে যেন একটা পরিবার আমরা।

এরপর শিক্ষায়তনিক কারিকুলামের মধ্যে যখন নিজেকে নতুনভাবে আবিষ্কার করি। কখনও নিজেকে একজন ফিল্ম ডিরেক্টর বা কখন নিজেকে একজন অভিনেতা হিসেবে আবিষ্কার করি। কখনও বাসের সিটটাতে বসে নিজেকে কল্পনা করি একজন ডেপুটি কমিশনার হিসেবে। মাঝে মধ্যে নিজের বিভাগের সামনে দাঁড়িয়ে সাঁজাতে থাকি সফলতার গল্প ।যা আমাকে আনন্দ দেয়।

আমার কাছে এই বিশ্ববিদ্যালয় এমন একটা জায়গা যেখানে প্রত্যেকের স্বপ্ন অতি যত্নসহকারে পরিচর্যা করা হয়। যে বিশ্ববিদ্যালয়ের একেকটা ডিপার্টমেন্ট ভবন,লাইব্রেরি,হল,চোখ ধাধানো ভাস্কর্য,মিলনায়তন এবং চিরসবুজ ক্যাম্পাস আমার মনে প্রবল আত্মবিশ্বাস জন্ম দেয় এবং আমাকে এবং আমাদেরকে ভাবতে শেখায়,”হ্যাঁ,আমি পারবো।”

আসিফ
ফিল্ম এন্ড মিডিয়া স্টাডিজ  বিভাগ

মতামত জানাচ্ছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগের শিক্ষার্থী মোমেন আহম্মেদ,

আমি নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের একজন ছাত্র। আমার কাছে “বিশ্ববিদ্যালয়’’ শব্দটা স্বপ্ন ৷ শুকরিয়া, কিছুদিন আগেও যা আমার স্বপ্ন ছিল আজ তা বাস্তব। সত্যিই আমি আনন্দিত আর এই আনন্দ নিয়ে আমার বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের প্রথম দিন শুরু হল। বিশ্ববিদ্যালয় উদ্দেশ্যে যখন যাত্রা শুরুকরলাম পূর্বের ভাবনা গুলো যেন পুনরায় সজীবতা ফিরে পেল। এমনই ভাবনা যা আমাকে আজ হাসতে বাধ্য করে ।

আমি যখন উপস্থিত হলাম বিশ্ববিদ্যালয় নামক আমার স্বপ্নে। তখন বন্ধুদের সাথে পরিচয়, শ্রদ্ধেয় শিক্ষকদের আন্তরিকতা আমাকে উচ্ছ্বাসিত করল। ক্লাস শেষ করে আমাদের একজন বন্ধু বলল ভাইদের সাথে পরিচিত হতে হবে চলো আমরা সবাই যাই। তখনই মনে বেজে উঠল পূর্বে শোনা “র‍্যাগিং” নামক এক অভিশপ্ত শব্দ। মনে ভয় নিয়ে যখন আমি তাদের সন্নিকটে গেলাম তখন আমি ভীত, শঙ্কিত এবং আতঙ্কিত ছিলাম। কিন্তু আজ আমি আমার বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের পাক্ষিক দিন পার করছি।

আজ আমার মনে এমন এক বীজ রোপন হলো যা আমার ভাবনার বিকাশ ঘটায়। অন্যদিকে যে মানুষগুলোকে আমি আমার লেখার শুরুতে অভিশপ্ত শব্দের অর্থাৎ “র‍্যাগিং” নামক নোংরা কাজের অন্তর্ভুক্ত বলে মনে করে আতঙ্কিত ছিলাম তাদের বিশেষ শাসন ও ভালোবাসায় সত্যি আজ আমি আনন্দিত।

আমি বুঝতে শিখেছি বিশ্ববিদ্যালয় শব্দটি শুধু স্বপ্ন নয় তার চেয়েও শত কোটি গুণ বেশি কিছু যা আমার জীবনের লক্ষ্য পৌঁছানোর একমাত্র সিঁড়ি। পরিশেষে বলতে চাই, এই বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার আমি ও আমার মত সকল নবীনদের জন্য আশীর্বাদ ।

মোমেন আহম্মেদ
হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগ

খবরটি শেয়ার করুন। শেয়ার অপশন না পেলে ব্রাউজারের এডব্লকার বন্ধ করুন।

এই ধরনের আরো খবর
sadeaholade
বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত নিবন্ধন নম্বর: আবেদনকৃত । © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইটের কোন কন্টেন্ট অনুমতি ছাড়া ব্যবহার নিষিদ্ধ।
themesbazarbdtone247